সরকার কোনো চ্যানেল বন্ধ করেনি: তথ্যমন্ত্রী

সরকার কোনো চ্যানেল বন্ধ করেনি: তথ্যমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক: বাংলাদেশে ভারতের জি-নেটওয়ার্কের সব চ্যানেল বন্ধের বিষয়ে তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেছেন, সরকার কোনো চ্যানেল বন্ধ করেনি, আইন প্রয়োগ করেছে।

মঙ্গলবার সচিবালয়ে চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির সঙ্গে বৈঠকে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী এ কথা জানান।

ভারতের জি-বাংলা, জি-বাংলা সিনেমা, জি-সিনেমা ও জি-টিভিসহ এই নেটওয়ার্কের সব চ্যানেল বন্ধের বিষয়ে জানতে চাইলে তথ্যমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে ভারতের জি-নেটওয়ার্কের কোনো চ্যানেল সরকার বন্ধ করেনি। সরকার প্রচলিত আইন প্রয়োগ করেছে।

তিনি বলেন, ক্যাবল টেলিভিশন নেটওয়ার্ক পরিচালনা আইন, ২০০৬’ এর উপধারা-১৯(১৩) এর বিধান অনুযায়ী, বাংলাদেশে বিদেশি কোনো চ্যানেলে কোনো ধরনের বিজ্ঞাপন প্রচার করা যায় না। শুধু দেশীয় বিজ্ঞাপন নয় কোনো ধরনের বিজ্ঞাপন দেখানো যায় না। এটা হচ্ছে বাংলাদেশের আইন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, একই ধরনের আইন ভারতে আছে, যুক্তরাজ্যে আছে, কন্টিনেন্টাল ইউরোপে আছে, অন্য দেশে আছে। সেসব দেশে এই আইন মানা হয়।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে এ আইনটি মানা হচ্ছিলো না। আইনটি প্রয়োগ করা হয়নি। সেটি না করার কারণে বাংলাদেশের টেলিভিশন চ্যানেলগুলো যে বিজ্ঞাপন পেতো সেগুলো চলে গেছে ভারতে।

পরিসংখ্যান দিয়ে মন্ত্রী জানান, ইউনিলিভার বাংলাদেশে পাঁচ বছর আগে বিজ্ঞাপনখাতে বাংলাদেশে ১৫ কোটি টাকা খরচ করতো। যেটি পাঁচ বছর পরে ২০ কোটি হওয়ার কথা ছিল, সেটি কমে পাঁচ কোটিতে গেছে। বাকি বিজ্ঞাপন ভারতীয় চ্যানেলের মাধ্যমে বাংলাদেশে প্রদর্শন করা হচ্ছিল, যেটি আইন বর্হিভূত। এরকম আরো অনেক কোম্পানি বছরে ৫০০ থেকে এক হাজার কোটি টাকার বিজ্ঞাপন অন্য দেশে চলে গেছে। টাকাটাও চলে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, ‘আমরা দেখতে পেলাম ডাউনলিংক করে বিদেশি চ্যানেলে বিজ্ঞাপন দেখানো হয় তখন আমরা নোটিশ দিয়েছি (পরিবেশক সংস্থাকে)। আমরা কোনো চ্যানেল বন্ধ করিনি।’

মন্ত্রী বলেন, সরকার কোনো চ্যানেল ডাউনলিংক করে না, যারা করে তারাই বলতে পারবে- এটা কেন বন্ধ হয়েছে।

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আমরা নোটিশ দিয়ে সাতদিনের মধ্যে তাদের কারণ দর্শাতে বলেছি। সাতদিনের মধ্যে জবাব দিক, এরপর জবাব অনুযায়ী ব্যবস্থা।’

১ এপ্রিল থেকে বিদেশি চ্যানেলে দেশীয় বিজ্ঞাপন নয়: তথ্যমন্ত্রী

১ এপ্রিল থেকে বিদেশি চ্যানেলে দেশীয় বিজ্ঞাপন নয়: তথ্যমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক: আগামী ১ এপ্রিল থেকে ডাউনলিংকপূর্বক সম্প্রচারিত সব বিদেশি টিভি চ্যানেলে দেশীয় পণ্যের বিজ্ঞাপন প্রচার বন্ধের নির্দেশ দিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

তিনি বলেন, এ জন্য ইতোমধ্যেই আমরা দুই বার পরিপত্র জারি করেছি। এটি আগামী ১ এপ্রিল থেকেই বাস্তবায়ন করতে চাই। কেউ যদি তা করে, তাহলে আইন প্রয়োগ করা হবে।

শনিবার রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমিতে এক গোলটেবিল বৈঠকে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তথ্যমন্ত্রী এ কথা বলেন। ‘সংকটে বেসরকারি টেলিভিশন’ শীর্ষক এই গোলটেবিল বৈঠকের আয়োজন করে সম্প্রচার সাংবাদিক কেন্দ্র।

তথ্যমন্ত্রী কেবল অপারেটরদের উদ্দেশে বলেন, ডাউন লিংক করে বিদেশি চ্যানেলে বিজ্ঞাপন দেখানো দণ্ডনীয় অপরাধ। শুধু এ–সংক্রান্ত আইন যথাযথভাবে মানা হলে বছরে দেশে ৫০০ কোটি টাকা বাড়বে। তিনি টেলিভিশনে বিদ্যমান সমস্যার কথা ইঙ্গিত করে বলেন, ‘টিভিশিল্পকে সুরক্ষা দিতে আসুন সবাই একযোগে কাজ করি।’

ডিস্ট্রিবিউটারদের সহযোগিতা কামনা করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, আমি আশা করছি এ বিষয়ে ইতোমধ্যেই আপনারা প্রস্তুতি গ্রহণ করেছেন। কারণ দুই মাস আগে থেকে আপনাদের এ বিষয়ে নির্দেশনা দেয়া হচ্ছে।

তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত ৪৪টি টেলিভিশনকে লাইসেন্স দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে ৩৩টি সম্প্রচারে রয়েছে, অন্যগুলো সম্প্রচারের অপেক্ষায়। আমাদের দেশে চ্যানেলের সংখ্যা কলকতার চেয়ে অনেক বেশি।

মন্ত্রী বলেন, টেলিভিশন চ্যানেলগুলো যেন টিকে থাকে, চ্যানেলে যারা চাকরি করে তাদের চাকরির যেনো নিশ্চয়তা থাকে, এসব বিষয়ে আমাদের সকলকে সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে। এজন্য চ্যানেলগুলোর আয় বাড়াতে হবে। টেলিভিশনগুলো এখনো বিজ্ঞাপন নির্ভর। কিন্তু দেশে বিজ্ঞাপনের মার্কেট কমে যাচ্ছে, আর টেলিভিশেনের সংখ্যা বেড়ে যাচ্ছে। টেলিভিশনগুলো নিজেরাও অসম প্রতিযোগিতা করে বিজ্ঞাপনের রেট কমিয়ে দিয়েছে। আবার অনলাইন, ফেসবুক, ইউটিউবেও বিজ্ঞাপন চলে যাচ্ছে।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সম্প্রচার সাংবাদিক কেন্দ্রের চেয়ারম্যান রেজোয়ানুল হক। সংগঠনটির সদস্যসচিব শাকিল আহমেদের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আরও বক্তৃতা দেন ডিবিসি টেলিভিশনের চেয়ারম্যান ইকবাল সোবহান চৌধুরী, চ্যানেল ২৪–এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সমকালের প্রকাশক এ কে আজাদ, বেঙ্গল গ্রুপ লিমিটেডের ভাইস চেয়ারম্যান আসফার খায়ের, স্কাই এন্টারটেইনমেন্ট নেটওয়ার্কের নুরুল আলম প্রমুখ।

পিআইবি’র মহাপরিচালক শাহ আলমগীর আর নেই

পিআইবি’র মহাপরিচালক শাহ আলমগীর আর নেই

নিউজ ডেস্ক: ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে) সাবেক সভাপতি ও প্রেস ইনস্টিটিউট বাংলাদেশের (পিআইবি) মহাপরিচালক ও সিনিয়র সাংবাদিক মো. শাহ আলমগীর আর নেই (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার দিকে রাজধানীর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। এর আগে সকালে তাকে লাইফ সাপোর্টে নেওয়া হয়।

শাহ আলমগীরের ভাগ্নে রাইয়ান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

শাহ আলমগীরের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, জাতীয় পার্টির প্রেসিডেন্ট হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ।

শাহ আলমগীর রক্তে হিমোগ্লোবিন কমে যাওয়া ও ডায়াবেটিসসহ বিভিন্ন রোগে ভুগছিলেন। গত দুই বছর ধরে তিনি ভারতের চেন্নাইতে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। ৪ ফেব্রুয়ারি সিঙ্গাপুর থেকে চিকিৎসা শেষে দেশে ফেরেন তিনি।

২১ ফেব্রুয়ারি রাতে অসুস্থ হয়ে পড়লে শাহ আলমগীরকে সিএমএইচে ভর্তি করা হয়। পরদিন তাকে আইসিইউতে স্থানান্তর করা হয়েছিল। সেখানে তার চিকিৎসার জন্য ছয় সদস্যের একটি মেডিকেল বোর্ডও গঠন করা হয়েছিল।

ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করা শাহ আলমগীর ২০১৩ সালের ৭ জুলাই পিআইবির মহাপরিচালকের দায়িত্ব পান। সাংবাদিকতায় বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে তিনি কবি আবু জাফর ওবায়দুল্লাহ সাহিত্য পুরস্কার ২০০৬, চন্দ্রাবতী স্বর্ণপদক ২০০৫ সহ বেশকিছু সম্মাননা পেয়েছেন।

প্রায় ৪০ বছর সাংবাদিকার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন শাহ আলমগীর। উপমহাদেশের প্রথম শিশু-কিশোর পত্রিকা সাপ্তাহিক কিশোর বাংলা পত্রিকায় ১৯৮০ সালে যোগ দেওয়ার মাধ্যমে তিনি সাংবাদিকতা শুরু করেন। এরপর তিনি কাজ করেন দৈনিক জনতা, বাংলার বাণী, আজাদ ও সংবাদ পত্রিকায়।

১৯৯৮ সালের নভেম্বর থেকে ২০০১ সালের সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত যুগ্ম বার্তা-সম্পাদক হিসেবে প্রথম আলোতে দায়িত্ব পালন করেন। এরপর তিনি চ্যানেল আইয়ের প্রধান বার্তা সম্পাদক হিসেবে কাজ শুরু করেন। এরপর একুশে টেলিভিশনে হেড অব নিউজ, যমুনা টেলিভিশনে পরিচালক (বার্তা) এবং মাছরাঙা টেলিভিশনে বার্তা প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

শাহ আলমগীরের পৈতৃক বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে হলেও বাবার চাকরি সূত্রে বৃহত্তর ময়মনসিংহে জীবনের দীর্ঘ একটি সময় কাটে তার। ময়মনসিংহের গৌরীপুর কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করে ভর্তি হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। বাংলা সাহিত্যে অনার্স ও মাস্টার্স করেন। শাহ আলমগীরের এক ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে।

শেখ হাসিনাকে নিয়ে নির্মিত ‘হাসিনা: অ্যা ডটারস টেল’ সিনেমাটি মুক্তি পাচ্ছে ১৬ নভেম্বর

নিউজ ডেস্ক  ::    প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে নির্মিত ‘হাসিনা: অ্যা ডটারস টেল’ সিনেমারটির ট্রেইলার প্রকাশ পায় সেপ্টেম্বরের শেষের দিকে। ট্রেইলার প্রকাশ হওয়ার পর পরই সিনেমাটি নিয়ে অন্যরকম আগ্রহ তৈরি হয় দর্শকের মাঝে। সোশ্যাল মিডিয়ায় রীতিমত ভাইরাল হয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে নির্মিত ‘অ্যা ডটারস টেল’ সিনেমার ট্রেইলার।

দুই মিনিট ৪৮ সেকেন্ড ব্যাপ্তির ট্রেলারটি চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট মানুষ থেকে শুরু করে সংসদ সদস্য, মন্ত্রী ও রাজনীতিকরাও তাদের টুইটার, ফেসবুক আর ইনস্টাগ্রামে শেয়ার করেন। অবশেষে মুক্তি পেতে যাচ্ছে বহুল প্রতীক্ষিত চলচ্চিত্র ‘হাসিনা: অ্যা ডটারস টেল’ সিনেমাটি। আগামী ১৬ নভেম্বর চলচ্চিত্রটি দেশের চারটি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাবে বলে জানা গেছে।এর মাধ্যমে সবার অপেক্ষার পালা শেষ হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে নির্মিত হয়েছে ডকু-ড্রামা ‘হাসিনা: অ্যা ডটারস টেল’।

বার্তা সংস্থা ইউএনবির তথ্যমতে, ‘হাসিনা: অ্যা ডটারস টেল’ প্রযোজনা করেছে আওয়ামী লীগের গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশন (সিআরআই)। সিআরআই এবং অ্যাপলবক্স ফিল্মসের প্রতিষ্ঠাতা ও পরিচালক রেজাউর রহমান খান পিপলু নির্মাণ করেছেন চলচ্চিত্রটি ।

জানা গেছে, ৭০ মিনিট দৈর্ঘ্যের এই চলচ্চিত্রটি নির্মাণ করতে পরিচালকের দীর্ঘ পাঁচ বছর সময় লেগেছে। অক্লান্ত প্রচেষ্টার পর এই চলচ্চিত্রটি নির্মিত হয়। চলচ্চিত্রটির পরিচালক পিপলু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নাটকীয় কিন্তু আন্তরিক ভঙ্গিতে চিত্রায়ণ করেছেন বিভিন্ন ভূমিকায়। কখনও বঙ্গবন্ধুর মেয়ে, কখনও একজন নেতা বা পুরো দেশের ‘আপা’ হিসেবে এবং সবকিছুর ঊর্ধ্বে তার ব্যক্তিসত্তাকে।
চট্টগ্রামনিউজ/এসএ

সাংবাদিক অশোক চৌধুরীর বাবার পরলোক গমন

সাংবাদিক অশোক চৌধুরীর বাবার পরলোক গমন

চট্টগ্রাম অফিস: বৈশাখী টেলিভিশনের বার্তা প্রধান অশোক চৌধুরীর বাবা, চট্টগ্রামের গোলপাহাড় কালীমন্দির পরিচালনা পর্ষদের সদস্য ও বিশিষ্ট সমাজসেবক সুধীর কুমার চৌধুরী আর নেই।

গতকাল শুক্রবার ভোরে নগরীর পাঁচলাইশের নিজ বাসায় পরলোকগমন করেন তিনি। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৫ বছর। বিকেলে পটিয়ার কচুয়াই ইউনিয়নে তার গ্রামের বাড়িতে শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়েছে। তিনি দীর্ঘদিন বার্ধক্যজনিত অসুস্থতায় ভুগছিলেন।

মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, এক মেয়ে ও এক ছেলেসহ অসংখ্য আত্মীয়-স্বজন রেখে যান। তিনি দীর্ঘ সময় ধরে বিভিন্ন শিপিং কোম্পানিতে কাজ করেছেন।

সুধীর কুমার চৌধুরীর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সভাপতি কলিম সরওয়ার, সাধারণ সম্পাদক শুকলাল দাশ এবং চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি নাজিমুদ্দীন শ্যামল ও সাধারণ সম্পাদক হাসান ফেরদৌস।

পৃথক বিবৃতিতে শোক জানিয়েছেন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি রিয়াজ হায়দার চৌধুরী, যুগ্ম মহাসচিব মহসিন কাজী, সদস্য রুবেল খান ও আজহার মাহমুদ।

চট্টগ্রাম ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি দিদারুল আলম, সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রব, বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন চট্টগ্রামের সভাপতি মঞ্জুরুল আলম মঞ্জু, সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান।

শোক জানিয়েছেন চট্টগ্রাম টিভি জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আলী আব্বাস, চট্টগ্রাম সাংবাদিক কো-অপারেটিভ হাউজিং সোসাইটির চেয়ারম্যান স্বপন মল্লিক, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বৈশাখী টেলিভিশনের চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধান মহসিন চৌধুরী, বিএফইউজের সাবেক যুগ্ম মহাসচিব ও বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কমের ব্যুরো এডিটর তপন চক্রবর্তী।

সাংবাদিক নেতারা প্রয়াতের আত্মার সদগতি কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

ডুবে ডুবে জল খাচ্ছে প্রিয়াঙ্কা ও জোনস

বিনোদন ডেস্ক  ::     কয়েকদিন আগেই গণমাধ্যমে চাউর হয়েছে ডুবে ডুবে জল খাচ্ছেন বলিউড তারকা প্রিয়াঙ্কা চোপড়া ও হলিউড অভিনেতা, সংগীতশিল্পী ও গীতিকার নিক জোনস। আর এই গুঞ্জনে পালে হাওয়া দেয় ইয়োটে চেপে নিক প্রিয়াঙ্কার সমুদ্র বিলাসের অন্তরঙ্গ একটি ছবি আর দুজনের স্টেডিয়ামে গিয়ে খেলা দেখার ভিডিও। তবে এসব গুঞ্জনের থোড়াই কেয়ার করছেন নিক-প্রিয়াঙ্কা।

সম্প্রতি পিপল ম্যাগাজিনকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এমনটিই জানিয়েছেন এই জুটির ঘনিষ্ঠ একটি সূত্র। ডিএনএ ইন্ডিয়ার খবরে প্রকাশ, তাঁরা একে অপরের প্রতি ভীষণ রকমের আসক্ত হয়ে পড়েছেন। সূত্রটি জানায়, ‘তাঁরা (নিক ও প্রিয়াঙ্কা) একে অপরের প্রতি এত পরিমাণে আসক্ত যে তাঁরা খেয়াল করেন না কে তাঁদের দেখল বা ছবি তুলল।

প্রিয়াঙ্কা নিকের চুলে হাত বোলানোর পর তাঁদের একসঙ্গে হাসতে ও নাচতেও দেখা গেছে। তাঁরা একে অপরের প্রতি ভীষণ দুর্বল হয়ে পড়েছেন। তাঁদের যথেষ্ট আকর্ষণীয়ও লাগছিল।’ সূত্রটি আরো জানায়, ‘প্রিয়াঙ্কা ও নিক খুব ঘনিষ্ঠভাবে কথা বলছিলেন। সেই সময় তাঁদের যথেষ্ট হাসিখুশি দেখাচ্ছিল। তাঁরা সবার সামনে অবশ্য ঘনিষ্ঠ হননি।

কিন্তু যখনই তাঁদের সামনে থেকে বন্ধুরা সরে যেত তখনই তাঁদের একসঙ্গে হতে দেখা যেত।’ গত বছর এক অনুষ্ঠানে ২৫ বছর বয়সী নিক জোনসের সঙ্গে পরিচয় হয় ৩৫ বছর বয়সী প্রিয়াঙ্কার। একসঙ্গে মেট গালার ২০১৭-এর লালগালিচায় হাঁটতে দেখা গিয়েছিল তাঁদের। বর্তমানে ‘কোয়ান্টিকো’ সিরিজের তৃতীয় মৌসুমের প্রচারে ব্যস্ত রয়েছেন প্রিয়াঙ্কা।

এ ছাড়া ‘অ্যা কিড লাইক জেক’ ও ‘ইজন্ট ইট রোমান্টিক’ নামে দুটি হলিউড ছবিও রয়েছে প্রিয়াঙ্কার হাতে। হলিউডের কাজ শেষে আবারও বলিউডমুখী হবেন প্রিয়াঙ্কা। সালমান খানের বিপরীতে ‘ভারত’ ছবিতে অভিনয় করার কথা রয়েছে তাঁর।
চট্টগ্রামনিউজ/এসএ

দৈনিক পূর্বকোণের সম্পাদক তসলিমউদ্দিন আর নেই

দৈনিক পূর্বকোণের সম্পাদক তসলিমউদ্দিন আর নেই

চট্টগ্রাম অফিস: চট্টগ্রাম থেকে প্রকাশিত দৈনিক পূর্বকোণের সম্পাদক স্থপতি তসলিমউদ্দিন চৌধুরী ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহি…রাজেউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬৩ বছর। তিনি দীর্ঘদিন ধরে দূরারোগ্য ব্যাধিতে ভুগছিলেন। তার মৃত্যুতে চট্টগ্রাম সাংবাদিক অঙ্গনে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

বুধবার সকাল পৌনে ৭টার দিকে ঢাকায় একটি বেসরকারী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি।

বুধবার এশার নামাজের পর (বাদ এশা) নাসিরাবাদ বালক উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে তসলিমউদ্দিন চৌধুরীর নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। এরপর রাউজান পৌরসভার (জলিলনগর) ঢেউয়া হাজিপাড়া গ্রামের পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হবে।

তসলিমউদ্দিন চৌধুরী মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব সভাপতি করিম সওয়ার ও সাধারণ সম্পাদক শুকলাল দাশ, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়ন সভাপতি রিয়াজ হায়দার সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী ও চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন সাংবাদিক ইউনিয়ন সভাপতি শামসুল হক হায়দারী ও সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ শাহনওয়াজসহ বিভিন্ন সংগঠন।

চট্টগ্রামের আঞ্চলিক দৈনিকগুলোর মধ্যে ঐতিহ্যবাহী এ পত্রিকাটি ১৯৮৬ সালের ১০ ফেব্রয়ারি প্রথম প্রকাশ পায়। সমৃদ্ধ চট্টগ্রাম গড়ার অঙ্গীকার নিয়ে পত্রিকাটি প্রতিষ্ঠা করেন মোহাম্মদ ইউছুফ চৌধুরী। শুরু থেকে প্রতিনিয়ত কাগুজে সংষ্করণ প্রকাশিত হয়ে আসলেও বিগত কয়েক বছর ধরে এর অনলাইন সংষ্করণও প্রকাশিত হচ্ছে নিয়মিত।

১৯৫৪ সালের ১ জানুয়ারি নগরীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে জন্ম নেওয়া স্থপতি তসলিমউদ্দিন চৌধুরী ১৯৮৯ সালের ১ ফেব্রুয়ারি দৈনিক পূর্বকোণের সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন। ২০০৭ সালের এপ্রিলে পূর্বকোণ গ্রুপের চেয়ারম্যান মনোনীত হন।

সেন্ট মেরিস ও সেন্ট প্লাসিডস স্কুল থেকে শিক্ষার প্রাথমিক পর্ব শেষ করে ফৌজদারহাট ক্যাডেট কলেজ থেকে বিজ্ঞানে উচ্চ মাধ্যমিক সম্পন্ন করে বুয়েট থেকে স্থাপত্য বিদ্যায় স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন।

প্রাতিষ্ঠানিক দায়িত্বের বাইরেও অসংখ্য শিক্ষা, সেবামূলক ও রাষ্ট্রিয় গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যু্ক্ত ছিলেন তসলিমউদ্দিন চৌধুরী। চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ লিমিটেড’র পরিচালক, চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের নগর উন্নয়ন কমিটি সদস্য, চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও এনিমেল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সদস্য, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন চেম্বারের সাবেক সহ-সভাপতি, বৃহত্তর চট্টগ্রাম উন্নয়ন সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি উল্লেখযোগ্য।

সাংবাদিক হত্যা: মেয়র মিরু বরখাস্ত

চট্টগ্রামনিউজ ডেস্ক : সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে সাংবাদিক শিমুল হত্যা মামলার প্রধান আসামি পৌর মেয়র হালিমুল হক মিরুকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। সোমবার দুপুরে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন জেলা স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক আবু নূর মোহাম্মাদ শামসুজ্জামান।

মামলার বাদী শিমুলের স্ত্রী নুরুন্নাহার আদালতে উপস্থিত হয়ে পুলিশের দেয়া চার্জশিট সমর্থন করায় সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. হাসিবুল হক তা আমলে নেন। পরে এক আবেদনের প্রেক্ষিতে সোমবার দুপুরে শাহজাদপুর পৌরসভার মেয়র ও কাউন্সিলর আব্দুর রাজ্জাককে সাময়িক বরখাস্তের আদেশ দেয় স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়।

উল্লেখ্য, চলতি বছরের ২ ফেব্রুয়ারি শাহজাদপুর সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি বিজয় মাহমুদকে মেয়র মিরু অস্ত্রের মুখে তুলে নিয়ে হাত-পা ভেঙে দেন বলে অভিযোগ ওঠে। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা মেয়রের বাড়ি ঘেরাও করে। এসময় মেয়রের পক্ষে দুটি গুলি ছোড়ার খবর আসে গণমাধ্যমে। ওই সময় পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে মিরু ও তার ভাইয়ের শটগানের গুলিতে সমকালের শাহজাদপুর প্রতিনিধি আবদুল হাকিম শিমুল মাথায় গুলিবিদ্ধ হন।

আহত অবস্থায় উদ্ধারের পর বগুড়া শজিমেক হাসপাতাল থেকে পরদিন ঢাকায় নেওয়ায় পথে দুপুরে মারা যান শিমুল। ওইদিন রাতেই শিমুলের স্ত্রী নুরুন্নাহার বেগম বাদী হয়ে মেয়রসহ ১৮ জনকে আসামি করে মামলা করেন।

‌’আমাদের সমন্বয়হীতার কারণে চট্টগ্রাম অনেক পিছিয়ে’

Ctg Pressclub MP pic (2)নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রামনিউজ : রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী এমপি বলেছেন, ক্ষুদ্র মানুষ হিসেবে সারাদেশের কথা যেভাবে চিন্তা করি, চট্টগ্রামের কথা তার চেয়ে বেশি চিন্তা করি। আমি চট্টগ্রামের ছেলে, চট্টগ্রামকে খুব ভালবাসি। আসলে চট্টগ্রামে অনেক কিছু দরকার। কিন্তু আমাদের সমন্বয়হীতার কারণে এখনো চট্টগ্রাম অনেক পিছিয়ে রয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাঞ্চে আয়োজিত ‘নান্দনিক চট্টগ্রামের নন্দিত নাগরিক’ শীর্ষক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, সাংবাদিকদের লেখনির মাধ্যমে দেশের মানুষ দিকনির্দেশনা পায়। মানুষ বুঝতে পারে কোনটা ভুল, কোনটা সঠিক। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, রেলের ভূমি বরাদ্দ পেতে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রী বরাবর আবেদনের পরামর্শ দেন। এবং প্রয়োজনে প্রধানমন্ত্রীকে আমিও বলবো।  আপনারা এগিয়ে আসুন। আশাকরি সমস্যা হবেনা।

Ctg Pressclub MP pic (1)সভায় দৈনিক আজাদীর সম্পাদক এমএ মালেক বলেছেন, সকলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করলে চট্টগ্রাম দ্রুত এগিয়ে যাবে। তবে চট্টগ্রাম এখনো উন্নত।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সভাপতি কলিম সরওয়ার, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শুকলাল দাস, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ, রাউজান উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এহছানুল হায়দার চৌধুরী বাবুলসহ প্রেসক্লাবের সদস্য ও কর্মকর্তারা।

প্রথম আলোর প্রধান আলোকচিত্র সাংবাদিক জিয়া ইসলাম সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত

cdb50f7f362e10748a961b9431f8f537-img_5670নিজস্ব প্রতিবেদকঃ  সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হয়েছেন প্রথম আলোর প্রধান আলোকচিত্র সাংবাদিক জিয়া ইসলাম। সোমবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে রাজধানীর পান্থপথে বসুন্ধরা সিটির সামনে এ ঘটনা ঘটে। তাঁকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ 15977348_10211336220258527_4466951449867754416_nহাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। জানা গেছে, জিয়া ইসলাম পান্থপথ ক্রসিং থেকে মোটরসাইকেলে করে কারওয়ান বাজারের দিকে যাচ্ছিলেন। বসুন্ধরা সিটির সামনে পৌঁছার পর একটি প্রাইভেট কার তাঁকে ধাক্কা দিয়ে চলে যায়। তিনি মাথা ও পায়ে গুরুতর আঘাত পান। সেখানে উপস্থিত অন্য গণমাধ্যমের কর্মীরা তাঁকে উদ্ধার করে দ্রুত ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে যান। পরে তাঁকে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) নেওয়া হয়।