১৭ ডিসেম্বর২০১৮, ৩ পৌষ১৪২৫
1024x90-ad-apnar

৪ কোটি মানুষের কর দেওয়া উচিত: অর্থমন্ত্রী

Tuesday, 13/11/2018 @ 4:30 pm

৪ কোটি মানুষের কর দেওয়া উচিত: অর্থমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক: দেশের উন্নয়নের লক্ষ্যে ১৬ কোটি মানুষের মধ্যে অন্তত ৪ কোটি মানুষের কর দেওয়া উচিত বলে মনে করেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

মঙ্গলবার রাজধানীর অফিসার্স ক্লাবে আয়কর মেলা-২০১৮ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি।

‘উন্নয়ন ও উত্তরণ, আয়করের অর্জন’ স্লোগানে সারা দেশে উৎসব মুখর পরিবেশে শুরু হওয়া এবারের মেলার প্রতিপাদ্য ‘আয়কর প্রবৃদ্ধির মাধ্যমে সামাজিক ন্যায় বিচার ও ধারাবাহিক উন্নয়ন নিশ্চিতকরণ’।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘আগে আমরা কর আদায় করতাম ৭ লাখ। তখন ১৫ লাখ করদাতার বেশি ছিল না। এখন করদাতার সংখ্যা ৩০ লাখের চেয়ে বেশি হয়ে গেছে। বিভিন্নভাবে এখন ১ কোটি মানুষ কর দেয়। অনেক ধরনের কর আছে, সেগুলোকে ধরলে ১ কোটি মানুষ আজকে কর দেয়। ১৬ কোটি মানুষের মধ্যে ১ কোটি করাদাতা।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের উন্নয়ন যেভাবে ধাবিত হচ্ছে ১ কোটি করাদাতা নিয়ে আমরা এখন সন্তুষ্ট নই। আমরা চাই, এই এক কোটির সঙ্গে আরো কয়েক কোটি এখানে যুক্ত হোক। এটি অন্তত ৪ কোটি হওয়া উচিত। তাহলে আমাদের যে সুবিধাটা হবে সরকার যে বিভিন্ন ধরণের সেবা আপনাদের কাছে উপস্থাপন করে তা নানাভাবে ব্যাপ্তি হবে।’

মুহিত বলেন, ‘এক সময় ছিল যখন কর দিতে আমাদের খুব অনীহা ছিল। সবাই মনে করতো আজ কর দিলাম, সারা জীবন একটি ফাঁদে পড়ে গেলাম। তবে এখন আর সে অবস্থা নেই। এখন অসংখ্য যুবক এসে লাইন ধরে কর দেয়। এটা আমাদের জাতির জন্য উল্লেখযোগ্য ঘটনা বলতে হবে।’

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘লক্ষ্য পূরণে আমাদের সরকার কাজ করে যাচ্ছে। আমাদের প্রধানমন্ত্রী নেতৃত্ব দিচ্ছে। এই নেতৃত্বটা একান্তাভাবে জনকল্যাণে নিবেদিত। জনকল্যাণে নিবেদিত নেতৃত্ব আছে বলেই আমরা দ্রুত গতিতে এগিয়ে যেতে পারছি। এই যে দ্রুত গতিতে আমাদের বিকাশ হচ্ছে, সেই বিকাশটা যাতে আরো সুন্দর হতে পারে, আরো উজ্জ্বল হতে পারে, সেটাই আমার আশা।’

আয়কর মেলা উৎসব পরিণত হয়েছে উল্লেখ করে মুহিত বলেন, ‘যারা এখানে কর দিতে এসেছে তাদের বিশেষভাবে অভিনন্দন। আপনারা মেলাটাকে স্বার্থক করে তুলেছেন। মেলাটা সত্যিকার অর্থেই মেলাতে পরিণত হয়েছে।’

এনআরবি চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়ার সভাপতিত্বে আয়কর মেলায় উপস্থিত ছিলেন অর্থ প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান, মেলার সমন্বয়ক জিয়া উদ্দিন মাহমুদসহ এনবিআর’র কর্মকর্তারা।