১৮ জুন২০১৮, ৪ আষাঢ়১৪২৫
1024x90-ad-apnar

দেশরত্ন শেখ হাসিনার শুভ জন্মদিন

Wednesday, 28/09/2016 @ 4:41 pm

দেশরত্ন শেখ হাসিনার শুভ জন্মদিন আজ

দেশরত্ন শেখ হাসিনার শুভ জন্মদিন আজ

নিউজ ডেস্ক: আজ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭০তম শুভ জন্মদিন। ১৯৪৭ সালের আজকের দিনে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন তিনি। শেখ হাসিনা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও বেগম শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের প্রথম সন্তান। দক্ষিণ এশিয়াসহ বিশ্ব রাজনীতিতে প্রভাবশালী ব্যক্তি হিসেবে নিজেকে আবির্ভূত করেছেন তিনি। বঙ্গবন্ধুর বড় মেয়ে ব্যক্তিজীবনে প্রয়াত পরমাণু বিজ্ঞানী ড. ওয়াজেদ মিয়ার সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ ছিলেন। তাদের দুই সন্তান- তথ্যপ্রযুক্তিবিদ সজীব ওয়াজেদ জয় এবং আন্তর্জাতিক অটিজম বিশেষজ্ঞ সায়মা ওয়াজেদ পুতুল।

বাংলাদেশের রাজনৈতিক অঙ্গনে উজ্জ্বল এক নক্ষত্রের নাম শেখ হাসিনা। তিনি অত্যন্ত ধার্মিক, গণতান্ত্রিক, অসাম্প্রদায়িক, আপসহীন, দৃঢ়চেতা, মমতাময়ী ও দূরদৃষ্টিসম্পন্ন প্রধানমন্ত্রী। দৃঢ়তা ও সাহসের সঙ্গে সব ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করে আজ চৌকস এক রাষ্ট্রনায়কে পরিণত হয়েছেন তিনি। তিনি দুই বার সফলতা ও দক্ষতার সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে রাষ্ট্র পরিচালনা করে বর্তমানে তৃতীয়বারের মতো গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রীর গুরুদায়িত্ব পালন করছেন। অন্তর্বর্তীকালীন সরকারেরও প্রধান ছিলেন তিনি। ইতোমধ্যেই নানা বাধা-বিপত্তি মোকাবেলা করে যুদ্ধাপরাধী, জঙ্গি ও সন্ত্রাসীদের আইনের আওতায় এনে তাদের বিচার করে তিনি এখন পরিণত হয়েছেন একজন বিশ্বনেতায়।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে এক অন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছেন। তিনি একমাত্র বাঙালি বধূ যিনি সরকার পরিচালনায় দক্ষতার সাক্ষর রেখেছেন। বিশ্বকে তাক লাগিয়ে সীমিত সম্পদের সঠিক ব্যবহার নিশ্চিত করে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন দুর্বার গতিতে। ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করে নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ, যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন, বিদ্যুৎ সমস্যার সমাধান, বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ বৃদ্ধি, জিডিপির লক্ষ মাত্রা উন্নয়ন, সমুদ্র বিজয়, ৬৮ বছরের ছিটমহল সমস্যার সফল সমাধান, আইনের শাসন নিশ্চিত করণ, দুর্নীতি দমনের মাধ্যমে সুশাসন নিশ্চিত করা, জঙ্গি ও সন্ত্রাসীদের আইনের আওতায় আনা, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করা, বাল্য বিবাহ ও মাতৃমৃত্যুর হার কমানো, ব্যবসা বান্ধব পরিবেশ সৃষ্টি, জলবায়ুর প্রভাব মোকাবেলা, ডিজিটাল বাংলাদেশ নির্মাণ, অবাধ তথ্য-প্রবাহের দুয়ার উন্মোচন, গণমাধ্যমের স্বাধীনতা, খাদ্য নিরাপত্তা, শিক্ষা ও চিকিৎসা সেবায় অভাবনীয় সাফল্যের ফলে বাংলাদেশ আজ বিশ্বের রোল মডেল। তাঁর নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ গৌরবের আসনে অধিষ্ঠিত। তিনি সমগ্র বাঙালি জাতির গর্ব।