১৭ নভেম্বর২০১৮, ৩ অগ্রহায়ণ১৪২৫
1024x90-ad-apnar

ঢাকায় নৌ বাহিনীর ঘাঁটি উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

Monday, 05/11/2018 @ 5:01 pm

ঢাকায় নৌ বাহিনীর ঘাঁটি উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক: রাজধানীর খিলক্ষেতে নৌ বাহিনীর ঘাঁটি ‘বানৌজা শেখ মুজিব’ এর উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সোমবার রাজধানীর খিলক্ষেতে বানৌজা শেখ মুজিব থেকে নৌ ঘাঁটিটির পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী ঢাকা, খুলনা, চট্টগ্রাম অঞ্চলে নৌ বাহিনীর জন্য ২২টি বহুতল ভবন উদ্বোধন করেন।

‘বানৌজা শেখ মুজিব’-ই হচ্ছে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে দেশের প্রথম কোনো নৌ ঘাঁটি। এ নৌ ঘাঁটিতে সব ধরনের আধুনিক সু্যোগ-সুবিধা থাকবে। এই নৌ ঘাঁটি বিশেষ করে প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলা ও নৌ বাহিনীর বিভিন্ন অপারেশনাল কার্যক্রম পরিচালনায় উন্নত তথ্য প্রযুক্তি কর্মসূচি, নেভাল ইন্টেলিজেন্স গোয়েন্দা প্রশিক্ষণ এবং দুর্যোগের সময় হেলিকপ্টারগুলোর রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব পালন করবে।

নৌঘাটি উদ্বোধন করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জাতির পিতা চেয়েছিলেন বাংলাদেশকে একটি উন্নত ও স্বাধীন দেশ হিসেবে গড়ে তুলতে। এজন্য তিনি একটি প্রতিরক্ষা নীতিমালাও তৈরি করেছিলেন। আবার ক্ষমতায় এলে নৌবাহিনীকে আরও আধুনিকভাবে করে গড়ে তোলা হবে।’

শেখ হাসিনা জানান, যারা দেশের অতন্ত্রপ্রহরী তাদের পরিবারের সকলেই যেন ভালোভাবে বসবাস করতে পারে সে লক্ষ্যে কাজ করছে সরকার।

তিনি বলেন, ২০০৯ থেকে ২০১৮ সালের মধ্যেই নৌবাহিনী আন্তর্জাতিকভাবে মানসম্পন্ন একটা ত্রিমাত্রিক বাহিনী হিসেবে গড়ে ওঠেছে। আজকে আমরা পূণার্ঙ্গ ত্রিমাত্রিক নৌবাহিনী গড়ে তুলতে সক্ষম হয়েছি। আমরা সরকার গঠনের পর নৌবাহীনিকে বিভিন্নভাবে শক্তিশালী করেছি এবং আন্তর্জাতিকমানে উন্নীত করেছি।

শেখ হাসিনা বলেন, প্রথমবার মাত্র ৫ বছর সরকারে ছিলাম। তার মাঝেই যতটুকু করা সম্ভব করেছিলাম। এরপর আবার যখন ২০০৯ সালে সরকারে আসি তখন থেকে এই নৌবাহিনীর উন্নয়নে ব্যাপক কর্মসূচি বাস্তবায়ন করি।

নৌবাহিনীর জন্য আবাসনের ব্যবস্থার কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা চাই যারা আমার দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্বের জন্য কাজ করে, স্বাধীনতা সার্বভৌমত্বের অতন্দ্র প্রহরী তারা এবং তাদের পরিবারবর্গ সুন্দরভাবে বসবাস করবে। একই সঙ্গে সুন্দরভাবে জীবনযাপন করবে এবং আন্তরিকভাবে কাজ করে যাবে।

এর আগে অনুষ্ঠানস্থলে পৌঁছালে প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানান নৌ বাহিনী প্রধান অ্যাডমিরাল নিজাম উদ্দিন আহমেদ।

এসময় প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানিয়ে সশস্ত্র সালাম জানানো হয়। পরে প্রধানমন্ত্রী নৌ ঘাটির কমিশনিং ফরমান ঘাঁটি কমান্ডারের হাতে তুলে দেন।

পরে অনুষ্ঠানে ‘বাংলাদেশ নৌ বাহিনী ২১০০’ বইয়ের মোড়ক উন্মেচন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা বিষয়ক উপদেষ্টা মেজর জেনারেল (অব.) তারেক আহমেদ সিদ্দিক, নৌ বাহিনী প্রধান অ্যাডমিরাল নিজাম উদ্দিন আহমেদ এবং ঊর্ধ্বতন সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।