২৩ সেপ্টেম্বর২০১৮, ৮ আশ্বিন১৪২৫
1024x90-ad-apnar

জেনে নিন হাড়ের ক্যান্সারের লক্ষণগুলি

Wednesday, 12/09/2018 @ 5:52 pm

জেনে নিন হাড়ের ক্যান্সারের লক্ষণগুলি

নিউজ ডেস্ক: হাড়ের ক্যান্সার বা ‘বোন ক্যান্সার’র সঙ্গে আমরা কেউই তেমন ভাবে পরিচিত নই। সাধারণত দেহের অঙ্গ প্রত্যঙ্গে ব্যথা কিছু পরিবর্তন দেখে আমরা দ্রুত ডাক্তারের শরণাপন্ন হয়ে নিশ্চিত হয়ে চিকিৎসা গ্রহন করে থাকি। কিন্তু হাড় সংক্রান্ত সমস্যায় পড়লে কোনও ভাবে আঘাত লেগেছে ভেবে বসে থাকেন অনেকেই। আর এই কারণেই হাড়ের ক্যান্সার শরীরে বিস্তারের সময় পেয়ে যায়। আর এই রোগ এমন সময় ধরা পড়ে যখন আর করার কিছুই থাকে না।

তাই চিনে নিন নীরব ঘাতক হাড়ের ক্যান্সারের মারাত্মক লক্ষণগুলি-

১) ব্যথার স্থান ফুলে যাওয়া: চোট-আঘাত না পাওয়া সত্ত্বেও হাড়ে ব্যথা হওয়ার পাশাপাশি যদি ব্যথা হওয়ার স্থান অনেকটা ফুলে যায়, বিশেষ করে জয়েন্টের স্থান ফুলে যায়, তাহলে এটি সাধারণ হাড়ের সমস্যা নাও হতে পারে। এ ছাড়াও ফুলে যাওয়া স্থানে গোটার মতো অনুভব হওয়া মাত্র সতর্ক হোন। চিকিত্সকের শরণাপন্ন হয়ে পরীক্ষা করিয়ে নিশ্চিত হয়ে নিন।

২) হাড়ে অতিরিক্ত ব্যথা হওয়া: হাড়ে প্রচণ্ড ব্যথা হওয়ার অর্থ যে আপনি কোনও ভাবে ব্যথা পেয়েছেন, তা নাও হতে পারে। হাড়ের ক্যান্সারের প্রাথমিক লক্ষণ হচ্ছে হাড়ে ব্যথা হওয়া। এই ব্যথা একটানা হবে না। হটাৎ করেই ব্যথা শুরু হওয়া এবং বন্ধ হয়ে যাওয়া। রাতের বেলা ব্যথা শুরু হওয়া, ভারী কোনও জিনিস তোলার পর ব্যথা হওয়া বা হাঁটার ফলে হাড়ে ব্যথা হওয়া ইত্যাদি হতে পারে হাড়ের ক্যান্সারের লক্ষণ। সুতরাং হাড়ের ব্যথা অবহেলা করবেন না।

৩) হাড় ভাঙা বা হাড়ে ফ্র্যাকচার হওয়া: হাড় অনেক মজবুত, মানুষের হাড় যা খুব সহজে ভাঙে না। কিন্তু হাড়ের ক্যান্সার হওয়ার ফলে হাড়ের ভেতরে ভেতরে ক্ষয় হতে থাকে এবং হাড় ভঙ্গুর হয়ে পড়ে। এর ফলে সাধারণ কাজ যেমন, ওঠা বা বসার সময়, হাঁটু গেঁড়ে বসার সময় বা এমনই নিতান্ত সাধারণ কারণেও অনেক সময় হাড় ভাঙা বা হাড় ফ্র্যাকচার হওয়ার ঘটনা ঘটতে পারে। এ ঘটনা মোটেই স্বাভাবিক নয়। এটি হাড়ের ক্যান্সারের লক্ষণ।

৪) অন্যান্য লক্ষণ সমূহ:

এই সব লক্ষণের পাশাপাশি আরও সাধারণ কিছু লক্ষণ নজরে আসে, যেমন:–

• অতিরিক্ত দুর্বলতা অনুভব করা।

• কোনও কারণ ছাড়াই ওজন কমতে থাকা।

• ঘন ঘন এবং অতিরিক্ত জ্বর হওয়া।

• রক্তশূন্যতায় ভোগা ইত্যাদি।

তাই উল্লেখিত লক্ষণগুলি দেখা দিলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।