১১ ডিসেম্বর২০১৮, ২৭ অগ্রহায়ণ১৪২৫
1024x90-ad-apnar

কক্সবাজারগামী ইউএস বাংলার ফ্লাইট জরুরি অবতরণ চট্টগ্রামে

Wednesday, 26/09/2018 @ 5:44 pm

কক্সবাজারগামী ইউএস বাংলার ফ্লাইট জরুরি অবতরণ চট্টগ্রামে

চট্টগ্রাম অফিস: ১৫৩ যাত্রী নিয়ে ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে কক্সবাজারগামী ইউএস বাংলার একটি ফ্লাইট জরুরি অবতরণ করেছে চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে।

বুধবার বেলা সোয়া ১টার দিকে ফ্লাইটটি জরুরি অবতরণ করায় বড় ধরনের দুর্ঘটনার হাত থেকে রক্ষা পান পাইলট, ক্রুসহ যাত্রীরা।

শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ব্যবস্থাপক সারওয়ার-ই-জাহান জানান, ঢাকা থেকে ফ্লাইটটি উড্ডয়নের পর দুপুর ১টার দিকে কক্সবাজারের আকাশে গিয়ে অবতরণের প্রস্তুতি নেন পাইলট। তখন পাইলটের দায়িত্বে ছিলেন ক্যাপ্টেন জাকারিয়া। কিছুক্ষণের মধ্যে বিমান কক্সবাজার বিমানবন্দরে অবতরণ করছে-এমন ঘোষণা দেওয়া হয় যাত্রীদের। কিন্তু ল্যান্ডিংয়ের জন্য ল্যান্ডিং গিয়ার একটিভ করতেই পাইলট সঙ্কেত পান বিমানের পেছনের চাকা খুললেও সামনের চাকা খুলছে না। পাইলট বেশ কয়েকবার চেষ্টা করেও সামনের চাকা ওপেন করতে ব্যর্থ হন। এরপর পাইলট ফ্লাইটটির সামনের চাকা না নামায় তিনি ফ্লাইটটি চট্টগ্রামে অবতরণের সিদ্ধান্ত নেন। এরপর সামনের চাকা ছাড়াই ফ্লাইটটি পেছনের চাকার ওপর ভর করে ‘জরুরি অবতরণ’ করে। পাইলটের দক্ষতার কারণে বড় ধরনের দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেয়েছে উড়োজাহাজটি।

এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, বোয়িং ৭৩৭ উড়োজাহাজটি নিরাপদে সরিয়ে নিতে কাজ করছে ইউএস বাংলা কর্তৃপক্ষ। আশাকরি, বিকেল পাঁচটার পর থেকে ফ্লাইট ওঠানামা শুরু হবে শাহ আমানতে।

ইউএস বাংলার মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) মো. কামরুল ইসলাম বলেন, কক্সবাজার নামতে না পেরে বিএস-১৪১ ফ্লাইটটি (বোয়িং ৭৩৭) চট্টগ্রামে জরুরি অবতরণ করে। ফ্লাইটের দু’জন পাইলট, পাঁচজন ক্রু, ১১ শিশুসহ ১৫৩ যাত্রীর সবাই নিরাপদে আছেন।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের উপ-সহকারী পরিচালক মো. জসীম উদ্দীন জানান, বেলা ১টা ১০ মিনিটের দিকে বিমান জরুরি অবতরণ করবে খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ইপিজেড, বন্দর ও আগ্রাবাদ ইউনিটের ৬টি গাড়ি শাহ আমানত বিমানবন্দরে পাঠানো হয়।

ইউএস বাংলা কর্তৃপক্ষ এক বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে, বুধবার সকাল সাড়ে ১১টায় ঢাকা থেকে কক্সবাজারগামী ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের বিএস-১৪১ ফ্লাইটটি কক্সবাজার এয়ারপোর্টে পৌঁছানোর পূর্বমূহূর্তে পাইলট টেকনিক্যাল কারণে জরুরি অবতরণের প্রয়োজন অনুভব করেন। কিন্তু কক্সবাজার এয়ারপোর্টে পর্যাপ্ত সুযোগ-সুবিধা না থাকার কারণে চট্টগ্রাম হজরত শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণের সিদ্ধান্ত নেন। পরবর্তীতে চট্টগ্রাম বিমানবন্দরে ইউএস-বাংলার ফ্লাইটটি অবতরণ করে। ফ্লাইটের সব যাত্রী, কেবিন ক্রু ও পাইলট নিরাপদে এয়ারক্রাফট থেকে বেরিয়ে এসেছেন। যাত্রী ও ক্রুসহ বিমানেরও কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়নি।