১৯ সেপ্টেম্বর২০১৮, ৪ আশ্বিন১৪২৫
1024x90-ad-apnar

এক লাখ মুসল্লির জন্য প্রস্তুত জাতীয় ঈদগাহ

Saturday, 24/06/2017 @ 10:20 am

নিউজ ডেস্ক : প্রতি বছরের মতো এবারও ঢাকার জাতীয় ঈদগাহ ময়দানে ঈদুল ফিতরের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হবে। জাতীয় ঈদগাহে প্রায় এক লাখ মুসল্লির একসঙ্গে নামাজ পড়ার ব্যবস্থা থাকবে। ঈদের জামাতের জন্য জাতীয় ঈদগাহ’র প্রস্তুতি প্রায় সম্পন্ন। এখন শেষ মুহূর্তের কিছু কাজ চলছে। রোববারের মধ্যে ময়দান নামাজ পড়ার জন্য পুরো প্রস্তুত হয়ে যাবে বলে জানিয়েছে এর ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে থাকা ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি) কর্তৃপক্ষ।

আবহাওয়া খুব বেশি প্রতিকূল না হলে জাতীয় ঈদগাহে সকাল সাড়ে ৮টায় ঈদের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হবে। রাষ্ট্র্রপতি মো. আবদুল হামিদসহ দেশের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা এই জামাতে অংশ নেবেন।

ডিএসসিসির কর্মকর্তা মিল্লাতুল ইসলাম জানান, তাদের সব প্রস্তুতি শেষ পর্যায়ে। রোববারের মধ্যে ময়দান পুরো প্রস্তুত হয়ে যাবে। শেষ দিন সন্ধ্যায় জায়নামাজ বিছানো হবে। অজুর জন্য যথাযথ ব্যবস্থা করা হয়েছে। পাঁচটি অস্থায়ী পাবলিক টয়লেট বসানো হয়েছে। অতিরিক্ত পানি নিষ্কাশনের জন্য পাম্প বসানো হয়েছে।

নিরাপত্তার দিকে কর্তৃপক্ষের যথাযথ দৃষ্টি রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, নিরাপত্তার জন্য ক্লোজড সার্কিট ক্যামেরা বসানো হয়েছে। নিরাপত্তা নিশ্চিতে নিয়ন্ত্রণ কক্ষ স্থাপন করেছে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) ও র‌্যাব। এ ছাড়া সোয়াট টিম ও ডগ স্কোয়াড থাকবে।

উল্লেখ্য, ১৩ রমজান থেকে ঈদগাহ সাজানোর কাজ শুরু হয়। ২২০ জন শ্রমিক এখানে কাজ করছেন। শুক্রবার ঈদগাহ পরিদর্শন করে দেখা গেছে, প্যান্ডেলের কাজ প্রায় শেষ। ফ্যান লাগানো হয়েছে। বৃষ্টির কথা মাথায় রেখে শামিয়ানার ওপর পানি নিরোধক ত্রিপল লাগানো হয়েছে। মাঠের সীমানা ও আশপাশের গাছে রঙ করা হয়েছে। সামনের সড়ক বিভাজকও রঙ করা হচ্ছে। সৌন্দর্যবর্ধক নতুন গাছ লাগানো হয়েছে। মাঠের ঘাস কাটা হয়েছে। বৃষ্টির পানি নিষ্কাশনে বিশেষ নজর দেওয়া হয়েছে।

এর আগে শুক্রবার বিকেলে জাতীয় ঈদগাহের নিরাপত্তা পরিদর্শন করেন র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ। এ সময় তিনি ঈদের জামাতে মুসল্লিদের জায়নামাজ ছাড়া অন্য কিছু সঙ্গে না আনার পরামর্শ দেন।

পরিদর্শন শেষে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, জাতীয় ঈদগাহ ও বায়তুল মোকাররমে জায়নামাজ ছাড়া অন্য কিছু নিয়ে মুসল্লিদের প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না। নিষেধ করা হচ্ছে না তবে পানির বোতলও না আনলে ভালো হয়। নিরাপত্তার জন্য অনেক ডিভাইস মোতায়েন করা হবে। ঈদকে কেন্দ্র করে নিরাপত্তা-সংক্রান্ত কোনো হুমকি নেই বলে জানান র‌্যাব মহাপরিচালক।